আইসিটি অধ্যায়-৩.২ : সংখ্যাপদ্ধতি ও ডিজিটাল ডিভাইস

Posted by: | Published: Monday, October 22, 2018 | Categories:
ওয়েব স্কুল বিডি : সুপ্রিয় শিক্ষার্থী বন্ধুরা, শুভেচ্ছা নিয়ো। আজ তোমাদের এইচ.এস.সি বা উচ্চমাধ্যমিকের আইসিটি অধ্যায়-৩.২ : সংখ্যাপদ্ধতি ও ডিজিটাল ডিভাইস এর বাইনারি থেকে অক্ট্যাল এবং হেক্সাডেসিমেল-এ রূপান্তর, অক্ট্যাল এবং হেক্সাডেসিমেল থেকে বাইনারিতে রুপান্তর, অক্ট্যাল এবং হেক্সাডেসিমেল-এ আবার হেক্সাডেসিমেল থেকে অক্ট্যাল সংখ্যা পদ্ধতিতে রুপান্তর নিয়ে আলোচনা করা হলো

অনলাইন এক্সামের বিভাগসমূহ:
জে.এস.সি
এস.এস.সি
এইচ.এস.সি
সকল শ্রেণির সৃজনশীল প্রশ্ন (খুব শীঘ্রই আসছে)
বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি (খুব শীঘ্রই আসছে)
বিসিএস প্রিলি টেষ্ট

আইসিটি অধ্যায়-৩.২ : সংখ্যাপদ্ধতি ও ডিজিটাল ডিভাইস


Type-3: বাইনারি থেকে অক্ট্যাল এবং হেক্সাডেসিমেল-এ রূপান্তর, অক্ট্যাল এবং হেক্সাডেসিমেল থেকে বাইনারিতে রুপান্তর, অক্ট্যাল এবং হেক্সাডেসিমেল-এ আবার হেক্সাডেসিমেল থেকে অক্ট্যাল সংখ্যা পদ্ধতিতে রুপান্তর

বাইনারি সংখ্যাকে অক্টাল সংখ্যায় রূপান্তরঃ



পূর্ণ সংখ্যার ক্ষেত্রে-
১। যেহেতু ৩-বিটের বাইনারি সংখ্যা দিয়ে একটি অক্টাল ডিজিট তৈরি হয়, তাই সেই সংখ্যাটির LSB থেকে MSB অর্থাৎ ডান থেকে বাম দিকে ৩-বিট করে পৃথক করে নিতে হবে।
২। ৩-বিটের কম হলে বাম পার্শ্বে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শুন্য বসিয়ে ৩-বিট পূর্ণ করতে হবে।
৩। অতপর প্রতিটি ৩-বিট অংশের আলাদা আলাদা ভাবে ডেসিমেল মান নির্ণয় করতে হবে।

ভগ্নাংশের ক্ষেত্রে-
১। যেহেতু ৩-বিটের বাইনারি সংখ্যা দিয়ে একটি অক্টাল ডিজিট তৈরি হয়, তাই সেই সংখ্যাটির MSB থেকে LSB অর্থাৎ বাম থেকে ডান দিকে ৩-বিট করে পৃথক করে নিতে হবে।
২। ৩-বিটের কম হলে ডান পার্শ্বে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শুন্য বসিয়ে ৩-বিট পূর্ণ করতে হবে।
৩। অতপর প্রতিটি ৩-বিট অংশের আলাদা আলাদা ভাবে ডেসিমেল মান নির্ণয় করতে হবে।
http://www.webschoolbd.com/2018/10/hsc-ict-chapter3.2.html


১। (1101001)2 কে অক্টাল সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।
২। (.1010011)2 কে অক্টাল সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।







বাইনারি সংখ্যাকে হেক্সাডেসিমেল সংখ্যায় রূপান্তরঃ

পূর্ণ সংখ্যার ক্ষেত্রে-
১। যেহেতু ৪-বিটের বাইনারি সংখ্যা দিয়ে একটি হেক্সাডেসিমেল ডিজিট তৈরি হয়, তাই সেই সংখ্যাটির LSB থেকে MSB অর্থাৎ ডান থেকে বাম দিকে ৪-বিট করে পৃথক করে নিতে হবে।
২। ৪-বিটের কম হলে বাম পার্শ্বে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শুন্য বসিয়ে ৪-বিট পূর্ণ করতে হবে।
৩। অতপর প্রতিটি ৪-বিট অংশের আলাদা আলাদা ভাবে ডেসিমেল মান নির্ণয় করতে হবে।

ভগ্নাংশের ক্ষেত্রে-
১। যেহেতু ৪-বিটের বাইনারি সংখ্যা দিয়ে একটি হেক্সাডেসিমেল ডিজিট তৈরি হয়, তাই সেই সংখ্যাটির MSB থেকে LSB অর্থাৎ বাম থেকে ডান দিকে ৪-বিট করে পৃথক করে নিতে হবে।
২। ৪-বিটের কম হলে ডান পার্শ্বে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শুন্য বসিয়ে ৪-বিট পূর্ণ করতে হবে।
৩। অতপর প্রতিটি ৪-বিট অংশের আলাদা আলাদা ভাবে ডেসিমেল মান নির্ণয় করতে হবে।

১। (1101101)2 কে অক্টাল সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।
২। (.1010011)2 কে অক্টাল সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।

অক্টাল সংখ্যাকে বাইনারি সংখ্যায় রূপান্তর:
১। অক্ট্যাল সংখ্যার প্রতিটি ডিজিটের আলাদা আলাদা বাইনারি মান নির্ণয় করতে হবে।
২। যেহেতু ৩-বিট দিয়ে একটি অক্ট্যাল ডিজিট প্রকাশ করা হয়। তাই কোন অক্ট্যাল সংখ্যার প্রতিটি ডিজিটের বাইনারি মান ৩-বিটের কম হলে বাম পার্শ্বে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শুন্য বসিয়ে ৩-বিট পূর্ণ করতে হবে।
৩। অবশেষে প্রাপ্ত বাইনারি মান গুলিকে পাশাপাশি সাজিয়ে লিখলে অক্ট্যাল সংখ্যাটির সমতূল্য বাইনারি সংখ্যা পাওয়া যাবে।
http://www.webschoolbd.com/2018/10/hsc-ict-chapter3.2.html

১। (127)8 কে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।
২। (.7125)8 কে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।

হেক্সাডেসিমেল সংখ্যাকে বাইনারি সংখ্যায় রূপান্তরঃ
১। হেক্সাডেসিমেল সংখ্যার প্রতিটি ডিজিটের আলাদা আলাদা বাইনারি মান নির্ণয় করতে হবে।
২। যেহেতু ৪-বিট দিয়ে একটি হেক্সাডেসিমেল ডিজিট প্রকাশ করা হয়। তাই কোন হেক্সাডেসিমেল সংখ্যার প্রতিটি ডিজিটের বাইনারি মান ৪-বিটের কম হলে বাম পার্শ্বে প্রয়োজনীয় সংখ্যক শুন্য বসিয়ে ৪-বিট পূর্ণ করতে হবে।
৩। অবশেষে প্রাপ্ত বাইনারি মান গুলিকে পাশাপাশি সাজিয়ে লিখলে হেক্সাডেসিমেল সংখ্যাটির সমতূল্য বাইনারি সংখ্যা পাওয়া যাবে।
http://www.webschoolbd.com/2018/10/hsc-ict-chapter3.2.html

১। (D218)16 কে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।
২। (.1C39)16 কে বাইনারি সংখ্যা পদ্ধতিতে রূপান্তর কর।

হেক্সাডেসিম্যাল হতে অকট্যাল রূপান্তরঃ
১। হেক্সাডেসিম্যাল সংখ্যাটিকে সমতূল্য বাইনারী সংখ্যায় রূপান্তর করতে হবে।
২। প্রাপ্ত বাইনারী সংখ্যাটিকে সমতূল্য অকট্যালে রূপান্তর করলেই কাংখিত অকট্যালে সংখ্যা পাওয়া যাবে।

চিত্র হতে পাই (12A)16 = 0452 = (452)8। প্রথমে হেক্সাডেসিম্যাল সংখ্যাটির প্রতিটি অংককে 4 বিটের বাইনারী সংখ্যায় রূপান্তর করা হয়। অতঃপর বাইনারী অংকগুলিকে পাশাপাশি সাজিয়ে তা হতে 3 ডিজিটের বাইনারী গ্রুপে তৈরী করা হয় এবং উক্ত প্রতিটি গ্রুপকে সমতূল্য ডেসিম্যাল সংখ্যা দ্বারা প্রতিস্থাপন করলে প্রাপ্ত সংখ্যাটি কাংখিত অকট্যাল সংখ্যা।

অকট্যাল হতে হেক্সাডেসিম্যাল রূপান্তরঃ
১। অকট্যাল সংখ্যাটিকে সমতূল্য বাইনারী সংখ্যায় রূপান্তর করতে হয়।
২। প্রাপ্ত বাইনারী সংখ্যাটিকে হেক্সাডেসিম্যালে রূপান্তর করতে হয়।


অনলাইন এ ক্লাস করুন একদম ফ্রী. …
প্রতিদিন রাত ৯টা থেকে ১০.৩০টা পর্যন্ত
Skype id - wschoolbd


বি.দ্র.: ওয়েব স্কুল বিডি থেকে বিদেশে পড়াশোনা সংক্রান্ত বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আমাদের সাথে যোগাযোগ – 01571769905 (সকাল ১১ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত)।

Previous
Next Post »

আপনার কোন কিছু জানার থাকলে কমেন্টস বক্স এ লিখতে পারেন। আমরা যথাযত চেস্টা করব আপনার সঠিক উত্তর দিতে। ভালো লাগলে ধন্যবাদ দিতে ভুলবেন না।
- শুভকামনায় ওয়েব স্কুল বিডি
ConversionConversion EmoticonEmoticon