১৪ মার্চ বিশ্ব পাই দিবস

Posted by: | Published: Tuesday, March 13, 2018 | Categories:
১৪ মার্চ বিশ্ব পাই দিবস। গাণিতিক ধ্রুবক পাই-এর সম্মানে দিবসটি পালন করা হয়। পাই দিবস কখনও কখনও ১৪ মার্চ দুপুর ১টা ৫৯ মিনিটে পালন করা হয়। এই দিন দুপুর ১টা ৫৯ মিনিট ২৬ সেকেন্ডকে পাই সেকেন্ড বলা হয়।

১৪ই মার্চই কেন বিশ্ব পাই দিবস?
আমাদের বাংলাদেশে আজ সবাই তারিখটি লিখছি ১৪/৩/২০১০ইং। কিন্তু আমেরিকাতে মাসের সংখ্যা খিলে প্রথমে তারপর বসে তারিখ আর সব শেষে বসে বছর। তাই আমেরিকাতে আজকের তারিখ লিখা হচ্ছে ৩/১৪/২০১০ইং। আমরা সবাই জানি পাই এর মান 3.141592653589……। এখানে 3.14 আর আমেরিকান ফরমেটে তারিখ 3/14, তাই ১৪ই মার্চকে বিশ্ব পাই দিবস হিসেবে পালন করা হয়। কোথাও কোথাও ১৪ই মার্চের দুপুর ১ টা ৫৯ মিনিট ২৬ সেকেণ্ডে এই পাই দিবলের সূচনা ধরা হয়। এক্ষত্রে ৩/১৪ >১>৫৯>২৬ অর্থাৎ দশমিকের পর সাতঘর পর্যন্ত মিলে যায়। তবে সবচেয়ে পারফেক্ট পাই দিবসটি চলে গেছে ১৫৯২সালের ১৪ই মার্চ সকাল ৬টা ৫৩ মিনিট৫৮ সেকেণ্ডে। সেদিনের হিসাবে ৩/১৪/১৫৯২ >৬>৫৩>৫৮, যা দশমিকের পরে এগারঘর পর্যন্ত মিলে গিয়েছিলো।
http://www.webschoolbd.com/

পাই কি?
বৃত্তের পরিধি (Circumference) এবং ব্যাস (Diameter) এর অনুপাতই (Ratio) হচ্ছে পাই । এই পাই একটি ধ্রুব সংখ্যা। যে কোনো বৃত্তের পরিধি ও ব্যাসের অনুপাত সর্বদাই সমান। একটি ছোট বৃত্ত মার্বেলের পরিধিকে ব্যাস দিয়ে ভাগ দিলে যে মান পাব, একটা বিশাল বৃত্ত সূর্যের পরিধিকে ব্যাস দিয়ে ভাগ দিলে সেই একই মান পাব। পরিধি এবং ব্যাসের এই ধ্রুবক অনুপাতটিকে গণিতের ক্ষেত্রে গ্রীক বর্নমালার ১৬তম অক্ষর ∏ দিয়ে প্রকাশ করা হয়।

পাই কেমন করে পাই
যীশু খ্রিষ্টের জন্মেরও প্রায় দুই হাজার বছর আগেই মানুষ ধরতে পেরছিলো বৃত্তের পরিধি ও ব্যাসের অনুপাত একটি ধ্রুব সংখ্যা। মিসমীয়রা এই অনুপাতকে (৪/৩)^৪ = ৩.১৬০৪৯৩৮২৭... হিসেব করতো। ব্যাবিলনীয় সভ্রতায় এই অনুপাতের মান ধরা হতো ৩১/৮ = ৩.৮৭৫ । আর আমাদের ভারতীয় উপমহাদেশের এই অঞ্চলে অনুপাতটিকে √১০ = ৩.১৬২২৭৭৬৬... ধরে কাজ চালিয়ে নিতো। বাইবেলে এই অনুপাতকে উল্লেখ করা হয়েছে ৩ হিসেবে। এর পর ১৫০ খ্রিষ্টাব্দে টলেমি ৩৭৭/১২০ হিসাব ধরেন, এই হিসাবে তিনি পাইয়ের মান দশমিকের পর তিন ঘর পর্যন্ত সঠিক পেয়েছিলেন(৩.১৪১৬৬৬৬৬৬৬......)। আর ৫০০ খ্রিষ্টাব্দে জু-জং চি দশমিকের পর ছয় ঘর পর্যন্ত সঠিক মান বের করতে সমর্থ হন ৩৫৫/১১৩ = ৩.১৪১৫৯২৯২০.....। ১৭০৬ সালে উইলিয়াম জোনস গ্রীক বর্নমালার ১৬তম অক্ষর ∏ কে বৃত্তের পরিধি ও ব্যাসের অনুপাত হিসেবে ব্যবহার করেন তার রচিত “সিমোপসিস পালামারিওরিয়াম ম্যাথেসিওস” বইতে। এখান থেকেই পাই কে আমরা পাই হিসেবে পাই।

১৭৬১ সালে লিন্ডম্যান প্রমাণ করেন পাই একটি অমূলদ সংখ্যা।

এখন আমরা বিশাল বিশাল অংক বা হিসাব চোখের নিমিশে করে ফেলতে পারি কম্পিউটারের সাহায্যে। কিন্তু যখন কম্পিউটার ছিলো না তখন গণিতবিদ উইলিয়াম রাদারফোর্ড তার সারাজীবন ব্যয় করেছেন পাইয়ের পিছনে। তিনি ১৮২৪সালে পাইয়ের মান ২০৮ঘর পর্যন্ত বের করেন, কিন্তু পরে দেখাগেলো এই মান ১৫৩ ঘরের পরে ভুল হয়েছে। এক নিমিশে তার জীবনের প্রায় অর্ধেক সময়ের কাজ ধুলোয় মিশে যায়।

Martin Zacharias Dase ছিলেন একজন মানুষ কম্পিউটার। কারণ তিনি চোখের নিমিশেই মাথার ভেতরে বিশাল বিশাল সব যোগ-বিয়োগ-গুণ-ভাগ করে ফেলতে পারতেন। Martin Zacharias Daseকে ব্যবহার করে গণিতবিদরা দুইমাসেই পাইয়ের মান ২০০ঘর পর্যন্ত বের করে ফেলেছিলেন।

আজ কম্পিউটারের যুগে পাইয়ের মান বের করা অনেক সহজ হয়ে গেছে। এখন পর্যন্ত দশমিকের পর ২.৭ ট্রিলিয়ন ঘর পর্যন্ত পাইয়ের মান বের করা সম্ভব হয়েছে। অথচ পাই এর মান দশমিকের পরে মাত্র ৩৯ ঘর জানলেই বিশ্বব্রক্ষ্মণ্ডের ব্যাসার্ধ, হাইড্রোজেন পরমাণুর ব্যাসার্ধ পর্যন্ত নিখুঁতভাবে বলে দেয়া সম্ভব। তথাপি এই মুহূর্তেও হয়তো কয়েক হাজার কম্পউটার ব্যস্ত আছে এই মান আরো বেশি সংখ্যাক ঘর পর্যন্ত খেঁজে পেতে।

পাইয়ের মান ১০০১ ঘর পর্যন্তঃ
3.1415926535897932384626433832795 028841971693993751058209749445923 078164062862089986280348253421170 679821480865132823066470938446095 505822317253594081284811174502841 027019385211055596446229489549303 819644288109756659334461284756482 337867831652712019091456485669234 603486104543266482133936072602491 412737245870066063155881748815209 209628292540917153643678925903600 113305305488204665213841469519415 116094330572703657595919530921861 173819326117931051185480744623799 627495673518857527248912279381830 119491298336733624406566430860213 949463952247371907021798609437027 705392171762931767523846748184676 694051320005681271452635608277857 713427577896091736371787214684409 012249534301465495853710507922796 892589235420199561121290219608640 344181598136297747713099605187072 113499999983729780499510597317328 160963185950244594553469083026425 223082533446850352619311881710100 031378387528865875332083814206171 776691473035982534904287554687311 595628638823537875937519577818577 805321712268066130019278766111959 092164201989

এতো জানা থাকার পরও ছোটো খাটো অংক করার জন্যএখনো আমরা পাইএর মান সাধারণত ২২/৭ = ৩.১৪ হিসাব করি।
পাই এর সঠিক ভগ্নাংশ হচ্ছে ১০৪৩৪৮/৩৩২১৫। এর সঠিকতর মাত্রা ০.০০০০০০০১০৫৬ শতাংশ।
এক সময় মানুষ বৃত্তের ক্ষেত্রফলের সমান বর্গক্ষেত্র আঁকতে চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়, যা কখনোই নিখুঁতভাবে আঁকা সম্ভব নয়। এ চেষ্টাকে একটা রোগ বলে আখ্যায়িত করে এর নাম দেয় Morbus Cyclometucus.

পাই এর মান বের করা নিয়ে সবচেয়ে মজার কাহীনিটি এখন বলছি। আমেরিকার ইন্ডিয়ানা স্টেটস এর একজন ডাক্তার ই. জে. গুডউইন ১৮৯৭সালে হঠাৎ করেই ঘোষণা করলেন পাইয়ের মান চার। শুধু ঘোষণা করেই থামলেন না বরং মহাপণ্ডিত রাজনীতিবিদদের কি করে বুঝিয়ে ইন্ডিয়ানা স্টেটস এর পার্লামেন্টে বিল (সাল ১৮৯৭ইং, বিল নং ২৪৬) আকারে পাসও করিয়ে ফেললেন। রাজনীতিবিদরা পাই এর মান ৪, বিল পাস করিয়ে মহাখুশী। দেখ গণীতবিদ আমরাও গণীতকে কিছু দিতে পারি, এতোই আমাদের দেয়ার ক্ষমতা! এবার তারা ঠিক করলেন যখনই পৃথিবীতে কেউ পই এর মান ৪ ব্যবহার করবে তাকে অবশ্যই কিছু রয়ালিটি দিতে হবে। তারা একটু উদারাতা দেখালেন নিজেদের স্টেটস ইন্ডিয়ানাকে। এই স্টেটস এর পাঠ্যবইয়ে রয়ালিটি ছারাই পাই = ৪ ব্যবহার করার অনুমতি দেয়।

বিলটি ১৮৯৭ সালের ১২ ফেব্রুয়ারিতে আইন হিসাবে পাস করার কথা ছিলো, কিন্তু সরা পৃথিবীর গণিতবিদদের অট্ট হাসি তাদের নার্ভাস করে দিলো। তাই রাজনীতিবিদরা এই বিলটিকা আবার স্থগিত ঘৌষণা করে দিলো এবং এখনো এই বিলটি স্থগিতই রয়েছে। (আল্লাহ্ জানে আবার কবে আইন হিসেবে পাস করে দেবে। মনে রাখবেন তখন কিন্তু রয়ালিটি দিতে হবে, যে কবার পাই লিখবেন সে কবারই। তাই এখনই যত খুশি পাই পাই করে নেন, তখন পাই বললেই অন্য কেউ পাবে-আপনাকে দিতে হবে। )

শেষ করছি ছোট্ট একটি প্রশ্ন দিয়ে। আজ ১৪ই মার্চ বিশ্ব পাই দিবসে একজনের জন্ম দিন। আপনি তাকে চিনেন, কে সেই সর্ব পরিচিত ব্যাক্তি?



 সূত্রঃ প্রথম আলো, নিউরনে অনুরণন।


Next
This is the current newest page
Previous
Next Post »

আপনার কোন কিছু জানার থাকলে কমেন্টস বক্স এ লিখতে পারেন। আমরা যথাযত চেস্টা করব আপনার সঠিক উত্তর দিতে। ভালো লাগলে ধন্যবাদ দিতে ভুলবেন না।
- শুভকামনায় ওয়েব স্কুল বিডি
ConversionConversion EmoticonEmoticon